বাঘায় আমগাছের সঙ্গে এ কেমন শত্রুতা! | সংবাদ

2

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীর বাঘায় রাতের অন্ধকারে সাড়ে ৫ বিঘা জমিতে রোপণ করা ৮২টি বিভিন্ন জাতের আমগাছ কেটে নিশ্চিহ্ন করে দেয়া হয়েছে।
ঈদের দিন ১২ আগস্ট রাতের অন্ধকারে এমন কাণ্ড ঘটিয়েছে দুর্বৃত্তরা।
ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার আড়ানী পৌর এলাকার কুশাবাড়িয়া-গোচর মাঠের জামনগর খেয়াঘাটের পূর্বদিকে।
এ ঘটনায় পাঁচ ব্যক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।
জানা যায়, ১-৩ বছর আগে বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌরসভার কুশাবাড়িয়া গ্রামের ও আড়ানী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান তোজাম্মেল হক দেড় বিঘা জমিতে ২০টি, ফজলুল হক তিন বিঘা জমিতে ৪৪টি, আড়ানী ডিগ্রি কলেজের অফিস সহকারী তোফাজ্জল হোসেন ৮ কাঠা জমিতে ৭টি, মিলন আলী ৭ কাঠা জমিতে ৫টি এবং বাগাতিপাড়া উপজেলার জামনগর গ্রামের আকরাম হোসেন ৬ কাঠা জমিতে ৬টি পৃথকভাবে মোট প্রায় সাড়ে ৫ বিঘা জমিতে বিভিন্ন জাতের আমগাছ রোপণ করেন।
আর সব আমগাছই রাতের আঁধারে কেটে ফেলা হয়েছে।
এ বিষয়ে আড়ানী ডিগ্রি কলেজের অফিস সহকারী তোফাজ্জল হোসেন বলেন, আমার কারও সঙ্গে কোনো শত্রুতা নেই। তার পরও আমার জমিতে রোপণ করা সব গাছ কেটে দেয়া হয়েছে।
কুশাবাড়িয়া গ্রামের আমগাছের আরেক মালিক ফজুলল হক বলেন, আমার রোপণ করা ৪৪টি গাছে চলতি মৌসুমে ৮ মণ আম ধরেছিল। এগুলো ১৫ হাজার টাকায় বিক্রি করেছি। এখন আর কিছুই অবশিষ্ট রইল না।

আড়ানী পৌরসভার কুশাবড়িয়া গ্রামের ১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রবিউল ইসলাম বলেন, মাঠে রোপণ করা ৫ ব্যক্তির আমগাছ রাতের আঁধারে কে বা কারা কেটে নষ্ট করে ফেলেছে শুনেছি। দোষীদের বের করে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দিয়েছি।
বাঘা থানার ওসি (তদন্ত) আবদুল ওহাব বলেন, এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।
সূত্র যুগান্তর