সুখে-দুঃখে আমেরিকা আমাদের পাশে থাকে রাশিয়ার বিপক্ষে ভোট দেওয়ার পর জানালেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সুখে-দুঃখে আমেরিকা আমাদের পাশে থাকে রাশিয়ার বিপক্ষে ভোট দেওয়ার পর জানালেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, আমেরিকার সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক মধুর রয়েছে। সুখে-দুঃখে তারা আমাদের পাশে আছে। সিঙ্গেল দেশ হিসেবে আমাদের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগে এক নাম্বারে যুক্তরাষ্ট্র।

বুধবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিতব্য পঞ্চম বিমসটেক শীর্ষ সম্মেলনে বাংলাদেশের অংশগ্রহণের বিষয়ে জানাতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
র‌্যাবের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, নিষেধাজ্ঞার পর থেকে দেশটির প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলাপ হলেই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে বাংলাদেশ জোর দিচ্ছে। নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার নিয়ে আলোচনা অব্যাহত থাকবে।

ড. মোমেন বলেন, ১০ ডিসেম্বরের পরে মার্কিন প্রতিনিধি যার সঙ্গেই আলাপ হয়েছে, র‌্যাব ইস্যুটা এসেছে। সম্প্রতি মার্কিন আন্ডার সেক্রেটারির সঙ্গে এটা নিয়ে আলাপ হয়েছে।
তিনি জানান, গত তিন মাসে র‌্যাবের কারণে কোনো মৃত্যু হয়নি। আমরা ওনাদের বলেছি, আমরা রিমেডিয়াল মেজারস যা যা নেয়ার নিচ্ছি। কোথাও কোনো অঘটন ঘটলে তার একটা আইনি প্রক্রিয়া আছে। রিমেডিয়াল মেজারস যেন কার্যকর হয় তার ওপর জোর দিচ্ছি।

জাতিসংঘে রাশিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের ভোট

ইউক্রেনে মানবিক সহায়তা ও বেসামরিক নাগরিকদের নিরাপত্তা নিয়ে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে পাস হয়েছে একটি প্রস্তাব। এতে ইউক্রেনের পক্ষে ভোট দিয়েছে বাংলাদেশ। অর্থাৎ এই ইস্যুতে প্রথমবারের মতো রাশিয়ার বিপক্ষে গেল বাংলাদেশ।তবে এদিনও ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা ছিল রাশিয়ার পক্ষে। এছাড়া প্রস্তাবে দেশটিতে ভয়াবহ মানবিক পরিস্থিতি তৈরি করার জন্য রাশিয়ার নিন্দা জানানো হয়। বৃহস্পতিবার এই খবর দিয়েছে আল-জাজিরা।

জাতিসংঘের ১৯৩ সদস্য দেশের মধ্যে ১৪০টি দেশ প্রস্তাবটির পক্ষে ভোট দেয়। রাশিয়া, সিরিয়া, উত্তর কোরিয়া, ইরিত্রিয়া এবং বেলারুশ প্রস্তাবটির বিপক্ষে ভোট দেয়। এছাড়া ৩৮টি দেশ ভোট দেয়া থেকে বিরত থাকে।
এর আগে ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার নিন্দায় জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে একটি ভোটাভুটির আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে ভোটদানে বিরত ছিল বাংলাদেশ।

এদিকে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ওপর আরও চাপ প্রয়োগ করতে পশ্চিমা মিত্রদের সঙ্গে বৃহস্পতিবার বৈঠক করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ইউক্রেনে রুশ হামলার পর মস্কোকে চাপে রাখতে কী করা যায়, তা নির্ধারণে তিনটি বৈঠক করবেন পশ্চিমা নেতারা। এটি হলো প্রথম বৈঠক।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net