ভোটার ধরে ধরে কেন্দ্রে ঢোকাচ্ছেন নৌকার প্রার্থী,বলছেন ‘আমি তোর পিছনেই আছি, নৌকায় সিল মার

ভোটার ধরে ধরে কেন্দ্রে ঢোকাচ্ছেন নৌকার প্রার্থী,বলছেন ‘আমি তোর পিছনেই আছি, নৌকায় সিল মার

বর্তমানে দেখা যাচ্ছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে বেশ আলোচনা সমালোচনা তৈরি হয়েছে এবং সেই সাথে এই নির্বাচনে নানা ধরনের নেতিবাচক ঘটনা ঘটছে এবং মানুষ এই সকল ঘটনার কারনে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে এবং সেই সাথে দেখা যাচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের নানা কর্মকান্ডের কারনে মানুষ বেশ ভিত হচ্ছে।

‘আমার লগে আয়, দেহি কেলা কী কয়। ভিতরে ঢুক, আমি তোর পিছনেই আছি, নৌকায় সিল মার’- আজ রবিবার দুপুরের পর ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার সহনাটি ইউনিয়নের ভালুকাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকার প্রার্থী বুথের কাছে দাঁড়িয়ে থেকে এক ভোটারকে এভাবেই নিজ প্রতীক নৌকায় ভোট দিতে বলেন। ঘণ্টাখানেক ভেতরে থেকে এভাবেই ভোটারদের চাপে ফেলে নৌকায় ভোট দেওয়ার নির্দেশ দেন। এ সময় কেন্দ্রের ভেতরে অন্য প্রার্থীর (মেম্বার) এজেন্টরা থাকলেও তাঁর (প্রার্থী) ভয়ে কেউ মুখ খোলেনি।
স্থানীয় সূত্র জানায়, রবিবার ছিল গৌরীপুর উপজেলার চতুর্থ ধাপের ১০টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। তার মধ্যে সহনাটি ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান পদে মোট ছয়জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন লন্ডনপ্রবাসী সালাহ উদ্দিন রুবেল নামে এক যুবক। দীর্ঘ সময় তিনি লন্ডনে বসবাস করে সম্প্রতি দেশে এসে নিজ এলাকায় ভোটার হয়ে বাজিমাত করেন। জাঁদরেল আওয়ামী লীগার ও ত্যাগী নেতাদের মনোনয়ন যুদ্ধে হারিয়ে তিনি বাগিয়ে নেন নৌকা প্রতীক।

নিজ বাড়ির কাছেই কেন্দ্র হওয়ায় সকাল থেকেই নিজের কবজায় নিয়ে নেন। সকাল ১০টার পর থেকেই অন্য চেয়ারম্যান পদের প্রার্থী এজেন্টদের বের করে দিয়ে নিজের পছন্দের লোকদের ভেতরে প্রবেশ করান। পরে একের পর এক ব্যালট নিয়ে বুথে ঢোকান। ওই সময় কাছে দাঁড়িয়ে থেকেই তিনি নৌকা প্রতীকে ভোট পড়েছে নিশ্চিত করেই ভোটারদের বের করেন। এ ঘটনা প্রত্যক্ষ করলেও মিডিয়ার লোকজন পরিচয় পেয়ে নৌকার প্রার্থী রুবেলের নির্দেশে তাঁর লোকজন কাছে এসে কোনো ধরনের ছবি তুলতে নিষেধ করেন। জানা যায়, ওই কেন্দ্রে মোট ভোটার প্রায় তিন হাজার।

কর্তব্যরত প্রিসাইডিং কর্মকর্তার কাছে জানতে চাইলে তিনি কোনো কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তবে চেয়ারম্যান প্রার্থী দুলাল আহম্মদ অভিযোগ করেন, নৌকার প্রার্থী তাঁর লোকজনকে প্রকাশ্যে ভোট দিতে নির্দেশ দিয়েছেন। নিজে ব্যালট হাতে নিয়ে বেশ কিছু ভোট দিয়েছেন। প্রশাসনের লোকজনকে এ ব্যাপারে অভিযোগ দিলেও কোনো কাজে হয়নি।
উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে একের পর এক নানান অনিয়মের অভিযোগ উঠছে এবং দেখা যাচ্ছে ক্ষমতাসীণ দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ বেশি রয়েছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং গনমাধ্যমে এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনার ঝড় উঠেছে এবং সেই সাথে তাদের এই ধরননের বক্তব্য মানুষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া তৈরি করছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net