ভ্যাক’সিন সার্টি’ফিকেট থেকে’ প্রধান’মন্ত্রী “নরেন্দ্র মোদির” ছবি সরিয়ে ফেলার বিষয়ে আদালতে আবেদন

ভ্যাক’সিন সার্টি’ফিকেট থেকে’ প্রধান’মন্ত্রী “নরেন্দ্র মোদির” ছবি সরিয়ে ফেলার বিষয়ে আদালতে আবেদন

মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি মোদির উদ্দেশ্যে বলেন-আপনি কোভিড ভ্যাকসিন সার্টিফিকে’টে আপনার ছবি’ বাধ্যতা’মূলক করেছেন। এখন কো’ভিডে মৃত’দের ডেথ সা’র্টিফিকেটেও নিজের ছবি রাখুন|কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন সার্টিফিকেট থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ছবি সরিয়ে ফেলার বিষ’য়ে আদালতে আবেদন করেছেন ভারতের ‘কেরালা রাজ্যের এক নাগরিক। নিজে’র ভ্যাকসিন সার্টিফিকেটে মোদির ছবি চান না তিনি। আগামী সপ্তাহে তার এ আবেদনের শুনানির কথা ‘রয়েছে |আবেদনকারী পিটার এম (৬২) একজন তথ্য অধিকার কর্মী এবং ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের সদস্য। মোদির ছবি’ ছাড়া নতুন একটি সার্টিফিকেট চান তিনি।

সার্টিফিকেটে নি’জের ছ’বি রাখার’ মাধ্যমে নাগরিকদে’র ব্যক্তিগত পরিসরে অনুপ্রবেশ করছেন তিনি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমার অনুরোধ, তিনি যেন এই ভুল এবং লজ্জাজনক কাজ অবিলম্বে বন্ধ করেন।তিনি বলেন,-‘এটি গণ’তন্ত্রের জন্য অনুপযুক্ত। এটি জাতি বা ব্যক্তির কোনো উপকারে’ই আসে না|প্রসঙ্গত, -ভারতীয় স্বস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জারি [‘করা ভ্যাকসিন সার্টিফিকেটে ব্যক্তিগত বিবরণ ছাড়াও’ রয়েছে মোদির ছবি। এছাড়া, ইংরেজী এবং স্থানীয় ভাষায় দু’টি ‘বার্তা’ লেখা রয়েছে এতে’। গত আগস্টে জুনিয়র স্বাস্থ্যম’ন্ত্রী ভারতী প্রবীণ পাওয়ার সংসদে ‘বলেছিলেন, সার্টিফিকেটের ছবি এ’বং উদ্ধৃতিগুলো ‘বৃহত্তর জনস্বা’র্থে’ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ‘ভ্যাকসিন নেওয়ার পরেও জনগণকে সচেতনভাবে চলতে ‘উৎসাহিত করা’র জন্য নেওয়া হয়েছে এই পদক্ষেপ। কিন্তু পি’টার বলেন, যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন তারা

ইতোমধ্যেই এর উপযোগিতা সম্পর্কে অবহিত।

 

মোদি আমাদের প্রথম প্রধানমন্ত্রী নন এবং এটি ভারতের প্রথম ভ্যাকসিনেশন প্রোগ্রামও নয়। কিন্তু কোভিড-১৯ নিয়ে প্রচারণা এবং ভ্যাকসিন কর্মসূচিকে প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী প্রচারের হাতিয়ার হিসেবে দেখানো হচ্ছে,” যোগ করেন তিনি।  সরকারি হাসপাতালে দীর্ঘ সারি থাকায় একটি বেসরকারি হাসপাতাল থেকে ভ্যাকসিন নিতে হয়েছিল তাকে। সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেওয়া হলেও বেসরকারির বেলায় নিজেদের পকেটের টাকা ‘খরচ করতে হ’চ্ছে ভারতীয় নাগরিকদের। আমি প্রতি ডোজের জন্য ৭৫০ ‘রুপি  খরচ করেছি। তাহলে আমার সার্টিফিকেটে মোদির ছবি কেন থাকবে?” বলেন তিনি।  ফেডারেল এবং রাজ্য সরকারকে জবাব দেওয়ার জন্য দুই সপ্তাহ সময় দিয়েছে কেরালা’ হাইকোর্ট। মোদির ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) দুইজন মুখপাত্রের সাথে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানান তারা|এদিকে, ভ্যাকসিন সার্টিফিকেটে প্রধানমন্ত্রীর ছবিটির সমালোচনা করেছেন তার রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীরাও। এমনকি তার ছবির জায়গায় নিজেদের মুখ্যমন্ত্রীর ছবি ‘বসিয়েছে কয়েকটি বিরোধী রাজ্য।মোদির বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত প্রচারের জন্য কোভিড ভ্যাকসিন ব্যবহার করার অভিযোগ এনেছেন কংগ্রেস দলের সিনিয়র নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভদ্র। তিনি ছাড়াও, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেন, কোভিডে মৃতদের ডেথ সার্টিফিকেটেও নিজের ছবি রাখা উচিত মোদির।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net