সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলাই মানে রাষ্ট্রদ্রোহিতা, সুতরাং সরকার হলো নতুন ঈশ্বর : রুশদ

সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলাই মানে রাষ্ট্রদ্রোহিতা, সুতরাং সরকার হলো নতুন ঈশ্বর : রুশদ

সরকার হল একটি দেশের অন্যতম প্রধান একটি ইস্যু, রাষ্ট পরিচালনায় সরকারের ভুমিকা অত্যান্ত গুরুত্বপুর্ন এবং প্রতিটি দেশে দেখা যায় সরকার ব্যবস্থা রয়েছে তবে অনেক দেশে গনত্বন্ত্র থাকলেও কিছু কিছু দেশে একনায়কত্বন্ত্র সরকার রয়েছে এবং সেই দেশের সরকার মুলত সাধারন জনগনকে তাদের নিবর্তনবাদ এবং চাপে কোনঠাসা করে রাখে।

এই কথাটি কোন নির্দিষ্ট দেশের জন্য নয়।পৃথিবীর আনাচে কানাচে নিবর্তনবাদ জেঁকে বসার প্রেক্ষিতে এই প্রশ্নটি রাষ্ট্র বিজ্ঞানীদের মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে। তারা বিস্ময়ের সাথে দেখছেন এখন দুনিয়ায় কার্য়কর কমিউনিজম না থাকলেও নতুন ধরনের একনায়কতন্ত্র ও নিবর্তনবাদ ছড়িয়ে পড়ছে। এসব নিবর্তনবাদী দেশের কোন কোনটিতে নির্বাচনের নামে প্রহসনও হচ্ছে। জনগণকে এমন কোনঠাসা করা হয়েছে বা হচ্ছে যে তারা সরকারের নিগড়ে বন্দী হয়ে পড়ছে। ব্যক্তি স্বাতন্ত্র বলেও কিছু থাকছে না। সরকার যা বলে, সরকারি প্রশাসন যা সিদ্ধান্ত নেয় সেটাই শিরোধার্য়।
রাষ্ট্র বিজ্ঞানীরা এমন কয়েকটি দেশের তালিকায় এনেছেন ভেনিজুয়েলা, নিকারাগুয়া, বেলারুশ, উত্তর কোরিয়া, সিরিয়া, আফগানিস্তান, মায়ানমার, মিশর ও… ।

এখন যেহেতু সরাসরি মিলিটারি শাসক বা সমাজতন্ত্র দিয়ে রাষ্ট্র ব্যবস্থা কব্জা করা যাচ্ছে না তাই নামকাওয়াস্তে নির্বাচন নির্বাচন খেলার মাধ্যমে বৈধতা পাওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে।
তাই সরকার সব, সরকার সব সময় সঠিক, সরকার যা বলে তাই প্রগতি, সরকার যা ঠিক করবে তারই প্রশস্তি গাইতে হবে, সরকার যা আইন করবে তাই মানতে হবে, সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলাই মানে রাষ্ট্রদ্রোহিতা…সুতরাং সরকার হলো নতুন ‘ইশ্বর’…
কিছু কিছু দেশে গনত্বন্ত্র এর কোন অস্তিত্ব নেই, রাষ্ট্র বিজ্ঞানীরা এমন কিছু দেশের নামের তালিকা প্রকাশ করেছ্বে ইটিমধ্যে এবং ঐ সকল দেশে দেখা যায় মানুষ সরকারের নিগড়ে বন্দী হয়ে পড়ছে এবং সেখানে সরকার যা বলবে তাই করতে হবে এবং সরকারের কথাই শেষ কথা

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net