পরীর ফাঁদে পা দিয়ে অবৈধ সম্পর্ক, ডিবি থেকে সরানো হচ্ছে সাকলায়েনকে

পরীর ফাঁদে পা দিয়ে অবৈধ সম্পর্ক, ডিবি থেকে সরানো হচ্ছে সাকলায়েনকে

নায়িকা পরীমনির সঙ্গে ‘অনৈতিক সম্পর্কে’ জড়ানোর অভিযোগে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কর্মকর্তা গোলাম সাকলায়েনকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে।
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনারের সিদ্ধান্তে তাকে ডিবির গুলশান বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনারের (এডিসি) দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে বলে নিশ্চিত করেছেন ডিবি প্রধান অতিরিক্ত কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার।

আজ শনিবার (৭ আগস্ট) দুপুরে তিনি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
মামলা তদন্তের খাতিরে চলচ্চিত্র অভিনেত্রী পরীমনির সঙ্গে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা (গুলশান) বিভাগের ডিবি অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) গোলাম সাকলায়েনের অনৈতিক মেলামেশার বিষয়টি খতিয়ে দেখছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

তবে, প্রাথমিকভাবে গোয়েন্দা গুলশান বিভাগের (ডিবি) চলতি দায়িত্ব থেকে এডিসি গোলাম সাকলায়েনকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার।
তিনি সাংবাদিকদের জানান, ডিএমপি কমিশনারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গোলাম সাকলায়েনকে ডিবি থেকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। আমরা শিগগিরই তদন্ত কমিটি গঠন করবো।

এদিকে, ডিএমপি সূত্র জানায়, গোলাম সাকলায়েনকে গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি) থেকে প্রাথমিকভাবে সরিয়ে ডিএমপি সদর দফতরে সংযুক্ত করা হবে। এরপর একটি তদন্ত কমিটি করা হবে৷ ওই তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী তার বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সূত্র আরও জানায়, পরীমনির সঙ্গে ডিবি এডিসি গোলাম সাকলায়েনের এমন সম্পর্কের বিষয়টি নিয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মধ্যে চলছে সমালোচনার ঝড়।
এ বিষয় নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠনের বিষয়েও গুঞ্জন শুরু হয়েছে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মধ্যে।

এর আগে সকালে মালিবাগের সিআইডি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি মো. ওমর ফারুক বলেন, ‘ডিবি কর্মকর্তা গোলাম সাকলায়েনের অনৈতিক সম্পর্কের বিষয়টি খতিয়ে দেখছে সিআইডি।’

তিনি বলেন, ‘৬ আগস্ট আমরা মামলার ডকেট বুঝে পেয়েছি, আসামির হেফাজতও বুঝে পেয়েছি। আসামিদের মধ্যে পরীমনি, মডেল মৌ, পিয়াসা ও নজরুল ইসলাম রাজ বর্তমানে সিআইডির হেফাজতে রয়েছে। তবে হেলেনা জাহাঙ্গীর ও মিশু হাসান বর্তমানে আমাদের হেফাজতে নেই। তারা অন্য মামলার তদন্তে ডিএমপির হেফাজতে।’

পরীমনি এখন আসামি। তবে এর আগে অন্য একটা মামলায় তিনি বাদী ছিলেন। ঘটনাক্রমে একজন মামলার বাদীর সঙ্গে মামলার সুপারভাইজারের (তত্ত্বাবধায়ক) অনৈতিক সম্পর্কে জড়ানোর অভিযোগ তদন্তে উঠে আসবে কি-না—সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ ওমর ফারুক বলেন, ‘অবশ্যই উঠে আসবে। আমরা সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করব। সেই কারণে মামলা এবং আসামি সংক্রান্ত বিষয়ে বিভিন্ন মাধ্যম ও গণমাধ্যমে যা প্রকাশ পাবে, সেই বিষয়গুলোও তদন্তের সময় জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি বলেন, ‘সবেমাত্র আমরা তদন্ত শুরু করেছি। সুতরাং এই মুহূর্তে আমাদের পক্ষ থেকে বেশি কিছু বলা মুশকিল। সিআইডিতে যেকোনো তদন্তই পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে করা হয়।’

‘আমাদের ফরেনসিক ল্যাব, কেমিক্যাল ল্যাব, ডিএনএ ল্যাব ও আইটি ফরেনসিক ল্যাব রয়েছে। আমরা মামলার তদন্ত সুষ্ঠুভাবে করতে চাই। এর জন্য তদন্ত কার্যক্রমে আমাদের সময় লাগবে। ইতোমধ্যে সিআইডির হেফাজতে থাকা আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করা হয়েছে’ যোগ করেন তিনি।

পরীমনির অপর্কমের অভিযোগগুলোর সঙ্গে প্রভাবশালীরাও জড়িত, এ প্রসঙ্গে শেখ ওমর ফারুক বলেন, ‘অবশ্যই, যদি প্রভাবশালী কেউ জড়িত থাকে। তবে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে। কারণ কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net