এক গর্তে এত শাপ দেখে হতভম্ব সবাই। (ভিডিও সহ)

এক গর্তে এত শাপ দেখে হতভম্ব সবাই। (ভিডিও সহ)

সাপ হাত পা বিহীন মাংসাশী ধূর্ত এক প্রকার সরীসৃপ। চোখের পাতা এবং বহিকর্ণ না থাকায়, সাপ  টিকটিকি থেকে আলাদা। বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস অনুযায়ী প্রাণী জগৎ

কর্ডাটা পর্বের, ভার্টিব্রাটা (মেরুদণ্ডী)  বর্গের সকলের মতোই সা’প এক্টোথার্মিক যার অর্থ হল একটি অংশ যাতে অভ্যন্তরীণ তাপ উতপন্নকারী জৈবিক উৎস রয়েছে।এখন পর্যন্ত যতোদূর জানা যায়, সাপের সর্বমোট ১৫টি পরিবার ৪৫০টি গণ, এবং ২,৯৫০ টিরও বেশি প্রজাতি রয়েছে।স্কা’ন্ডিনেভিয়া থেকে দক্ষিণে একেবারে অস্ট্রেলিয়া পর্যন্ত এদের বসবাসের বিস্তৃতি। অ্যান্টার্কটিকা ছাড়া সকল মহাদেশেই সাপের উপস্থিতি দেখা যায়।তা হতে পারে সমুদ্রের গভীরতম তলদেশে অথবা পর্বতের সুউচ্চ শানুদেশে প্রায় ষোলো হাজার ফিট  ওপরে হিমালয় পর্বতমালাতেও। আবার আশ্চর্যের ব্যাপার এমন কিছু দ্বীপ বা দ্বীপপুঞ্জ আছে যেখানে সা’পের দেখা পাওয়া যায় না।

যেমন আয়ারল্যান্ড, আইসল্যান্ড এবং নিউজিল্যান্ড (যদিও নিউজিল্যান্ড এর জলে পেটের কাছে হলুদ রঙ্ এমন সামুদ্রিক সা’প আর ডোরাকা’টা সামুদ্রিক ক্রেইট এর দেখা পাওয়া যায়।

এদের আকার কখনও খুব ছোট, ১০ সে.মি. থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২৫ ফুট বা ৭.৬ মিটার (অজগর ও অ্যানাকোন্ডা) পর্যন্ত হতে পারে। সম্প্রতি আবিষ্কৃত টাইটানোবোয়া জীবাশ্ম প্রায় ১৩ মিটার বা ৪৩ ফুট লম্বা।

বিষধর হিসেবে বিখ্যাত হলেও বেশীরভাগ প্রজাতির সাপ বিষহীন হয় এবং যেগুলো বিষধর সেগুলোও আত্ম’রক্ষার চেয়ে শিকার করার সময় বিভিন্ন প্রা’ণীকে ঘায়েল করতেই বিষের ব্যবহার বেশি করে। কিছু সা’পের বিষ মানুষের মা’রাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকি বা মৃত্যু ঘটায়। অনেক সময় সাপের বিষ মানুষের উপকারে আসে, যা বিভিন্ন রোগের ঔষধ হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

https://youtu.be/3mOmJ6oTYFU

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net