বীমার ক্ষতিপূরণ-ব্যাংক ঋণ থেকে রেহাই পেতে ১২ বাসে আগুন

বীমার ক্ষতিপূরণ-ব্যাংক ঋণ থেকে রেহাই পেতে ১২ বাসে আগুন

ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির কাছ থেকে ক্ষতিপূরণ ও ব্যাংক ঋণের দায় থেকে রেহাই পেতে ফরিদপুরে দুই হাজার কোটি টাকা অর্থপাচারের মামলায় জব্দ করা ১২টি বাসে আগুন দেয়া হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সোমবার বিকালে ফরিদপুরের পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও তদন্ত) জামাল পাশা। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে শহরের গোয়ালচামটে হেলিপোর্ট বাজার থেকে ৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান তিনি।

জামাল পাশা জানান, বাস পোড়ানোর ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে তাদের গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে আসামি জহুরুল ইসলাম জনি ও মোহাম্মদ আলী ঘটনার সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত বলে স্বীকার করেন। বিকালে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ার জন্য তাদের ১ নম্বর আমলি আদালতে পাঠানো হয়।
গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে জহুরুল ইসলাম জনি পুড়ে যাওয়া বাসগুলো দেখাশোনা করতেন। মোহাম্মদ আলী সেখানকার নাইটগার্ড ছিলেন বলেও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।
গত ১২ই মার্চ রাত সোয়া ১টার দিকে বাসগুলোতে রহস্যজনক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

মাত্র এক ঘণ্টার মধ্যে ১২টি বাস পুড়ে যায়। ঢাকার কাফরুল থানায় সিআইডির করা দুই হাজার কোটি টাকা মানি লন্ডারিংয়ের মামলায় জব্দ করা বাসগুলো কোতোয়ালি থানা পুলিশের হেফাজতে ছিল।

এ ঘটনায় কোতোয়ালি থানার ইন্সপেক্টর এসআই মো. আব্দুল গাফফার বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। অগ্নিকাণ্ডের পর ঘটনা তদন্তে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইমদাদুল হককে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে তদন্ত কমিটির বাকি দুই সদস্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুমন রঞ্জন কর ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হেলাল উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net