দুনিয়াতে এমন লোক খুঁজে পাবেনা তুমি যার কোন চিন্তা নেই-হযরত খিযর (আ.)

দুনিয়াতে এমন লোক খুঁজে পাবেনা তুমি যার কোন চিন্তা নেই-হযরত খিযর (আ.)

জনৈক এক ব্যক্তি “একদা হযরত খিযর (আ.) এর সাক্ষাৎ লাভ করেন। লােকটি হযরত খিজির  (আ.)-এর নিকট আবেদন করে, হুযূর আপনি আমার জন্য দু’আ করুন।হযরত খিযর (আ.) বললেন, কী দুআ করবাে? লােকটি বলল, আল্লাহ পাক যেন আমাকে চিন্তা মুক্ত জীবন দান করেন, গোটা যিন্দেগীতে কোন পেরেশানীর সম্মুখীন না হই।হযরত খিযর (আ.) বললেন, দুনিয়াতে এমন লোক খুঁজে পাবেনা তুমি যার কোন চিন্তা নেই। তবে তুমি তোমার পছন্দ মত একজনকে বাছাই কর আমি দু’আ করবো আল্লাহ পাক যেন তোমাকে তার মত বানিয়ে দেন।

লোকটি ভাবলো বেশ ভালই হল। বেরিয়ে পড়ে লোকটি আনন্দে আত্মহারা হয়ে খুঁজে পেয়ে যায় এমন বিত্তশালী কাউকে। ভাবে এর মতো হওয়া চাই। অনুসন্ধানের পর তার চেয়েও বড় ধনকুবেরের সন্ধান পেয়ে যায়।এবার বুঝি পেয়ে গেছি কাঙ্ক্ষিত লোকটি। কিছুদিন পর এলাকার সেরা ধনী যার ধন দৌলত প্রভাব প্রতিপত্তি সুপ্রসিদ্ধ, এর মত হলেও তো মন্দ না।

 

 

কিন্তু সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করার আগে তার দৃষ্টি কেড়ে নেয় নান্দনিক একটা মনি মুক্তার দোকান, যেখানে বসে মহামূল্যবান বিভিন্ন ধাতু অলংকারের সারি, স্বর্ণে রৌপ্যে বোঝাই দৃষ্টিনন্দন জুয়েলারী বিশাল দোকানটি, জুয়েলার্সের মালিক বসে আছেন তার সামনে, ভবনটি দেখার মত। বিলাসবহুল গাড়ি বাড়ির মালিক তিনি, সুদর্শন ছেলে পুত্র তার পাশে উপবিষ্ট, চাকর কর্মচারী সবাই হাস্যোজ্জল চঞ্চল, এসব দৃশ্যে কার নজর না কাড়ে।যাক এবার সিদ্ধান্ত নেয়া যায়, এ প্রতিষ্ঠানের সাচ্ছন্দময় মালিকের মত হলে অতি সুখে কাটবে আমার সারা জীবন! হঠাৎ লোকটি চিন্তা করে এসব তো বাহ্যিক অবস্থা, অভ্যন্তরীণ কোন সমস্যা আছে কী না? নতুবা আমার বর্তমান অবস্থাটাও তো হারাবে।

 

চাকচিক্যময় জুয়েলার্সে গিয়ে মালিকের নিকট মনের অভিব্যক্তি পেশ করে সে তার মত হতে চায়। লোকটিকে গোপনে ডেকে মালিক বর্ণনা করে তার দুর্বিষহ গ্লানিময় সংসারের অতি ভেতরের কাহিনী।তার স্ত্রীর স্বভাব সম্পর্কে বলতে গিয়ে ছেলেটিকে দেখিয়ে বলে এটা তার ঔরষজাত সন্তান নয় ইত্যাদি। আমার বাহ্যিক দৌলতের ছড়াছড়ি চাকর নওকর দেখে ধোঁকায় পড়ে যেওনা যে লোকটা মহাসুখী! বাস্তবিক পক্ষে আমার প্রত্যেকটা মুহূর্ত দুশ্চিন্তা পেরেশানী দুঃখ জ্বালার অন্ত নেই।খবরদার আমার মত দুর্ভাগা হবার দু’আ কস্মিনকালেও করতে যেওনা। এখন লোকটি বুঝতে পারলো

 

বাইরে ফিটফাট ভেতরে সদরঘাট-ভেজাবেড়ালের স্বরূপ। যতই আরাম আয়েশ দৃশ্যমান হোক না কেন কোন না কোন মুছীবত পেরেশানীতে গ্রেফতার রয়েছে সে।পুনরায় হযরত খিযর (আ.)-এর সাথে দেখা হলে তিনি তাকে বললেন: এবার তুমি কোন্ সুখী ব্যক্তির মত হতে চাও বল। আমি কাউকেই চিন্তা ও পেরেশান মুক্ত পেলাম না। আপনি আমার জন্য দুআ করবেন যার মত হবার এমন পছন্দনীয় কেউ মিললোনা।

হযরত খিযর (আ.) বললেন।-আমি তোমাকে আগেই বলেছিলাম, দুনিয়াতে চিন্তামুক্ত কাউকে তুমি পাবেনা। হ্যা অবশ্য আমি তোমার জন্য এই দুআ করি, আল্লাহ পাক তোমাকে নিরাপদ ও শান্তিময় জীবন দান করেন।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 RTNBD.net